ই-ক্যাব এর ই রাজনীতি

Razib Ahmed এর অক্লান্ত পরিশ্রম ও আরো অনেকের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফল ই-ক্যাব । অনেক আশা নিয়ে মেম্বার হয়েছিলাম । গ্রুপে হাইলাইট করবে । কিন্তু তেল দেওয়ার মতন মানসিকতা আমার নাই । কেননা আমি গ্রাম থেকে বলছি । আমি মেম্বার ছিলাম । এখন আমার মেম্বারশীপ আছে কি না জানি না। কেননা আমি প্রথম বার মেম্বারের জন্য টাকা পরিশোধ করি । এরপর দেখলাম আমি এইটা আমাকে কোথাও উপস্থাপন করলো না । সেই রকম কোন প্রভাব পড়ে নাই আমার ব্যবসার উপরে । পরবর্তিতে আমি ই-ক্যাবের উপর থেকে আগ্রহ হারিয়ে ফেলি।

ই ক্যাব বড় ব্যবসায়ীদের জন্য ভাল প্রোমোশনের মাধ্যম ছিল সেই সময় । আমার মত ছোট মানুষের জন্য নয় ।

ইভ্যালীর রাজনীতি কতশত রাজনীতি দেখলাম । কিন্তু গ্রাম কিংবা অন্যান্য শহর কেন্দ্রীক ইক্যাব হতে পারে না । ই ক্যাব ঢাকা কেন্দ্রীক ।

শুধু ই ক্যাব নয় প্রতিটি এসোশিয়েশন ঢাকা কেন্দ্রীক হয়ে গেছে ।

ই ক্যাবের ই রাজনীতি শুরু হয়েছে আগামীতে ভোট । কিছু ম্যাসেজ পেয়েছি কিন্তু আমি তো ভোট দিব না । কিংবা মেম্বারশীপ রেনুয়াল নিয়েও মাথা ব্যথা নাই । কেননা বেনিফিট গ্রামে বসে থেকে দিবে না ।

কথায় কেউ কষ্ট পাইলে মাফ করবেন । কথা গুলো একান্ত মনের ক্ষোভ ।

এই কথাটি সবার জানা আছে “যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে তবে একলা চলো রে । “

ব্যবসা পরিচালনায় যদি রাজনীতি থাকে সেই ধরনের এসোসিয়েশনে থাকার প্রয়োজন নেই ।

e-Commerce Association of Bangladesh (e-CAB)